adimage

২১ সেপ্টেম্বর ২০১৯
সকাল ১১:১০, শনিবার

ঈদ আনন্দে বখাটেদের উৎপাত

আপডেট  11:33 AM, অগাস্ট ২০ ২০১৯   Posted in : জাতীয় দোহার-নবাবগঞ্জের সংবাদ    

ঈদআনন্দেবখাটেদেরউৎপাত

প্রিয় বাংলা অনলাইন :

ঈদকে কেন্দ্র করে দোহার ও নবাবগঞ্জের প্রধান সড়ক থেকে গ্রামের ছোট ছোট সড়ক, বিনোদন কেন্দ্রগুলো এবং পদ¥া নদীর বাহ্রা ও মৈনট ঘাট সবখানেই ছিল বখাটেদের রাজত্ব। ট্রলার ও পণ্য বা গরু বহনকারী ট্রাকে সাউন্ড সিস্টেমে উচ্চ শব্দে হিন্দি আর ডিজে গানের সাথে অশালীন অঙ্গভঙ্গিতে নেচে গেয়ে ওরা আনন্দে মেতে উঠে। রাস্তা দিয়ে যেতে থাকা সুসজ্জিত তরুন-তরুনীদের দেখলেই ট্রাকের গতি কমিয়ে নাচের গতি বাড়িয়ে দিয়ে অশালীন মন্তব্য ছুঁড়ে দেয়ার দৃশ্য লক্ষনীয় ছিল প্রতিটি এলাকার রাস্তাঘাটে। একই কারনে বিব্রত অবস্থায় পড়তে হয় দোহারের বাহ্রা ঘাট ও মৈনট ঘাটে ঘুরতে আসা যুবতী ও তরুনীদের।

ঈদের পরবর্তী গত কয়েকদিনে বিভিন্ন এলাকা ঘুরে প্রিয় বাংলার নিজস্ব প্রতিবেদক ও সংবাদদাতাদের তথ্যের ভিত্তিতে জানা যায়, দোহার- নবাবগঞ্জের রাস্তাঘাটগুলো সারাদিনই ছিল বখাটেদের দখলে। পরিবার পরিজন নিয়ে ঘুরতে বের হয়ে বখাটেদের আচরনের কাছে নাজেহাল হতে হয়েছে অনেককে। প্রতিবাদ করতে গেলে ট্রাকের উপরে থাকা বখাটের দলবেঁধে হইহুল্লোর করে উঠেছে আক্রমনাত্মক ভঙ্গিতে। যে কারণে সম্মান রক্ষায় বখাটেদের উৎপাত সহ্য করতে হয়েছে বাধ্য হয়েই। বখাটে বহনকারী ট্রাকের পাশ দিয়ে কোন তরুনী গেলেই অশালীন অঙ্গভঙ্গিতে হুমরি খেয়ে পরতে দেখা গেছে।  

 দোহারের বাহ্রা ও মৈনট ঘাটে প্রতিদিন বিকেল হলেই ভীড় জমে দর্শনার্থীদের। আর ছুটির দিন হলে তো কোন কথাই নেই। তবে বাহ্রা ঘাটে ঘুরতে আশা অনেক দর্শনার্থীদের অভিযোগ এখানে এত লোকের সমাগম হলেও প্রশাসনের নেই কোন নিরাপত্তা কর্মী। রয়েছে বখাটেদের বখাটেপনা।

রবিবার বিকেলে সরেজমিনে বাহ্রা ঘাটে গিয়ে দেখা যায় একটি ট্রলারে বেশ কিছু বখাটে যুবক হিন্দি গানের তালে তালে অশ্লীল নৃত্য করছে তারা। নৃত্যের তালে আবার হেলে দুলে পরছে অনেকে। শুধু তাই নয় পদ্মার পাড়ের কাছে এসে মেয়েদের দিকে করছে অশ্লীল অঙ্গভঙ্গি। এতে বিব্রতকর অবস্থায় পড়েন অনেকে।

সাথী নামে এক দর্শনার্থী প্রিয় বাংলাকে জানান, আমরা এখানে পরিবার পরিজন নিয়ে ঘুরতে এসেছি। কিন্তু ট্রলারে থাকা ছেলেরা যেভাবে আমাদের উদ্দেশ্য করে অশ্লীল অঙ্গভঙ্গি করছে এতে নিজেরাই লজ্জা পাচ্ছি।

সোহেল নামে আরেক দর্শনার্থী জানান, আমি ঢাকা থেকে আমার মামা ও বোনকে নিয়ে এখানে এসেছি কিন্তু বখাটেদের এমন কর্মকান্ডে খুব লজ্জা পেলাম। এদের ঘরে কি মা বোন নেই?

রাজিব হোসেন নামে স্থানীয় এক ব্যক্তি জানান, দোহারের বর্তমান সংসদ সদস্য সালমান এফ রহমানের উন্নয়নের কারনে এই বাহ্রা ঘাটটি সৌন্দর্য বৃদ্ধি পেয়েছে।এটি ধীরে ধীরে আরও সুন্দর হবে।তাই এখানে যদি প্রশাসনের নজরদারী থাকে তাহলে দর্শনার্থীরা এসে আরও স্বাচ্ছন্দ বোধ করবে।

আব্দুল হাকিম নামে এক ব্যবসায়ী ক্ষোভের সাথে বলেন, পরিবার পরিজন নিয়ে যে একটু ঘুরব সেই পরিস্থিতিও নেই। সর্বত্রই দেখছি বখাটের রাজত্ব। চিন্তা করছি সামনের বছর আর পরিবার নিয়ে বেরই হব না।


সর্বাধিক পঠিত

Comments

এই পেইজের আরও খবর

মোবাইল অ্যাপ ডাউনলোড করুন

nazrul