adimage

২৫ মে ২০২০
বিকাল ০৮:৫৯, সোমবার

দোহারের পদ্মার চরে যাত্রার নামে অশ্লীলতা বন্ধে গভীর রাতে ইউএনও’র অভিযান (ভিডিও সহ)

আপডেট  03:40 PM, জানুয়ারী ০৫ ২০১৮   Posted in : জাতীয় আঞ্চলিক দোহার-নবাবগঞ্জের সংবাদ    

দোহারেরপদ্মারচরেযাত্রারনামেঅশ্লীলতাবন্ধেগভীররাতেইউএনও’রঅভিযান(ভিডিওসহ)

প্রিয় বাংলা অনলাইন:
দোহার উপজেলার বিচ্ছিন্ন পদ্মার চর নারিশা জোয়ারে যাত্রা ও আনন্দ মেলার নামে তরুনীদের অশ্লীল নৃত্য প্রদর্শণের অভিযোগে শুক্রবার গভীর রাতে সেখানে অভিযান চালিয়েছে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা কে এম আল-আমিন। অশ্লীলতার প্রমান পেয়ে এসময় তিনি যাত্রা নামে চলতে থাকা অশ্লীল নৃত্য বন্ধ করে দেন।

শুক্রবার রাত সাড়ে ১১টার দিকে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা দোহার থানা পুলিশ ও নারিশা ইউপি চেয়াম্যানকে সাথে নিয়ে নদী পার হয়ে অতর্কিতভাবে নারিশা জোয়ারের যাত্রামঞ্চে উপস্থিত হন। ওই সময় যাত্রামঞ্চে এক তরুনী অশ্লীল নৃত্য প্রদর্শণ করছিলেন। আর তরুন-যুককরা দর্শক হিসেবে ৫০০ ও ৩০০ টাকার টিকিট কেটে তা দেখছিলেন। এসময় ইউএনও’র উপস্থিতি টের পেয়ে গা’ঢাকা দেয়ার চেষ্টা করেন যাত্রার আয়োজক মেঘুলা ৪নং ওয়ার্ড আওয়ামী লীগের সভাপতি আবুল কালাম হাওলাদার। তবে একপর্যায়ে কৌশলে তাকে ডেকে আনা হয় ঘটনাস্থলে। 
এসময় ইউএনও যাত্রার অনুমতি নিয়ে মেয়েদের অশ্লীল নৃত্য প্রদর্শণের বিষয়ে আবুল কালাম হাওলাদের কাছে জানতে চাইলে তিনি কোন সদুত্তর দিতে পারেননি। তখন ইউএনও আয়োজক আবুলকে বলেন, আপনি সামাজিক যাত্রা আয়োজনের অনুমতি নিয়ে অশ্লীলতা ও অসামাজিক কার্যকলাপ পরিচালনা করে শর্ত ভঙ্গ করেছেন। কাজেই আপনি নিজে মাইকে ঘোষণা দিয়ে এ মূহুর্তে এ আয়োজন বন্ধ করবেন। নচেৎ আমি কঠোর ব্যবস্থা গ্রহণ করতে বাধ্য হব। ইউএনওর কথা শুনে তাৎক্ষনিকভাবে আবুল কালাম হাওলাদার মাইকে ঘোষণা দিয়ে যাত্রা ও আনন্দমেলার আয়োজন বন্ধ ঘোষানা করেন। একইসাথে অঙ্গীকার করেন তিনি আর এমন কার্যকলাপের সাথে কোনদিন থাকবেন না। অভিযান চলাকালে আতঙ্কে গা ঢাকা দিতে শুরু করেন অনেকেই। এসময় ঢাকা সহ বিভিন্ন স্থান থেকে অশ্লীল নৃত্য প্রদর্শন করতে আসা ৭/৮ জন তরুনীও কৌশলে গা’ঢাকা দেন। 

দোহার উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা কে এম আল-আমিন বলেন, সুস্থ সংস্কৃতির ধারক ও বাহক যাত্রাপালা। সামাজিক যাত্রা আয়োজনের অঙ্গীকার করে শর্ত সাপেক্ষে ঢাকা জেলা প্রশাসক অফিস থেকে অনুমতি নিয়েছিল আবুল কালাম হাওলাদার। তিনি একতা সমিতির ব্যানারে এ আয়োজন করে তা থেকে আদায়কৃত অর্থ নদী ভাঙন কবলিত মানুষকে দেওয়ার কথাও আবেদনে লিখেছিলেন। কিন্তু কালাম হাওলাদার শর্ত ভঙ্গ করে যাত্রার নামে পদ্মার চরে তরুনীদের দিয়ে অশ্লীল নৃত্য প্রদর্শণ করিয়ে সে শর্ত ভঙ্গ করেছেন। শুক্রবার রাতে অভিযান চলাকালে অশ্লীলতার প্রমান পেয়ে তা বন্ধ করে দেয়া হয়েছে। এরপরেও যদি এমন কর্মকান্ড চলতে থাকে তাহলে কঠোর ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।

অভিযানের সময় ইউএনও’র সাথে ছিলেন দোহার থানার ওসি (তদন্ত) ইয়াছিন মোল্লা, নারিশা ইউপি চেয়ারম্যান সালাহউদ্দিন দরানী, দোহার প্রেস ক্লাবের সাবেক সভাপতি অমিতাভ অপু।

এদিকে যাত্রার নামে অশ্লীলতা বন্ধ করার দাবিতে গত কয়েকদিন ধরেই সরব ছিল ফেসবুক ব্যবহারকারী ও এলাকার ধর্মপ্রাণ মুসলমান সহ সাধারন মানুষ। প্রতিবাদ সভা আয়োজনের মাধ্যমে তারা এমন কর্মকান্ডের প্রতিবাদ জানিয়েছেন প্রকাশ্যে। অভিযোগ জানিয়েছিলেন স্থানীয় প্রশাসনের কাছে।


সর্বাধিক পঠিত

Comments

এই পেইজের আরও খবর

মোবাইল অ্যাপ ডাউনলোড করুন

nazrul