adimage

১৫ অক্টোবর ২০১৯
সকাল ০৪:৫১, মঙ্গলবার

দোহারে “সুখ সাথী সংস্থা” গ্রাহকের টাকা নিয়ে উধাও

আপডেট  03:19 PM, Jul ০৬ ২০১৯   Posted in : জাতীয় দোহার-নবাবগঞ্জের সংবাদ    

দোহারে“সুখসাথীসংস্থা”গ্রাহকেরটাকানিয়েউধাও

প্রিয় বাংলা অনলাইন.

গ্রাহকের টাকা নিয়ে উধাও হয়েছে ঢাকার দোহার উপজেলার ইউসুফপুর বাজারে ‘সুখ সাথী সংস্থা’ কর্ণধার ও তার তিন সহযোগী। মোটা অঙ্কের ঋণ দেওয়ার প্রলোভন দেখিয়ে স্থানীয়দের কাছ থেকে অর্থ হাতিয়ে নেয় তারা। সেই অর্থ নিয়ে মাত্র নয় দিনের মাথায় চম্পট দিয়েছেন তারা। তবে এ ঘটনা কিছুটা আঁচ করতে পেরে কয়েকজন গ্রাহক প্রতিষ্ঠানের শাখা ব্যবস্থাপক মো. নুরুল হুদাকে কৌশলে ধরে পুলিশের হাতে তুলে দেন। পরে ভ্রাম্যমান আদালত তাকে তিন মাসের কারাদন্ড দিয়ে কারাগারে প্রেরণের নির্দেশ দেন।  তবে ঘটনার মুল প্রতারক মো. জুলহাস তার তিন সহযোগীকে নিয়ে পালিয়ে যেতে সক্ষম হয়েছেন।

কারাদন্ড প্রাপ্ত নুরুল হুদা ফরিদপুর জেলার আলফাডাঙ্গা উপজেলার নওয়াপাড়া পশ্চিমপাড়া গ্রামের ইউনুছ সরদারের ছেলে।

স্থানীয় ও পুলিশ সূত্রে জানা যায়, কিছুদিন দিন আগে দোহারের ইউসুফপুর বাজারের একটি ফ্লাট বাড়িতে বাসা ভাড়া নিয়ে‘ সুখ সাথী সংস্থা’ নামে একটি সমাজ কল্যাণ সংস্থা অফিস বানানো হয়। সংস্থাটি এলাকার বিভিন্ন মানুষকে এক সপ্তাহের মধ্যে মোটা অঙ্কের ঋণ দেওয়ার প্রলোভন দেখিয়ে জনপ্রতি ১০ হাজার থেকে ১৫ হাজার টাকা আদায় করে। আর এ কাজে ব্যবহার করে স্থানীয় কয়েকজন শিক্ষিত তরুণীকে। চাকুরী দিবে বলে মাঠ কর্মী হিসেবে তরুণীকে কাজ করতে উৎসাহিত করে। এতে ঐ তরুণীরা ঋণের কথা বলে তাদের আত্মীয় স্বজনদের কাছ থেকে ১০ হাজার টাকা করে নেয়। বুধবার রাতে কয়েকজন গ্রাহক বিষয়টি আঁচ করতে পেয়ে ইউসুফপুর শাখার ব্যবস্থাপক নুরুল হুদাকে আটক করে পুলিশের কাজে হস্তান্তর করেন। এসময় তার কাছ থেকে ১৫টি পাশ বই সহ নগদ প্রায় ৫৩ হাজার টাকা ও একটি মোটরসাইকেল জব্দ করা হয়। পরে আরও এক লাখ টাকা বিকাশের মাধ্যমে নুরুল হুদা অন্য প্রতারক সদস্যদের কাছ থেকে আনেন নুরুল। সে টাকাও উদ্ধার করা হয়। 

পরে বৃহস্পতিবার বিকেলে প্রতারক নুরুল হুদাকে ভ্রাম্যমান আদালতে হাজির করা হলে আদালতের নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট ও উপজেলা সহকারী কমিশনার (ভূমি) জ্যোতি বিকাশ চন্দ্র তাকে তিন মাসের বিনাশ্রম কারাদন্ড প্রদান করেন।

পরে জব্দকৃত টাকা ক্ষতিগ্রস্ত পরিবারের মাঝে পাস বই দেখে টাকার অংক অনুপাতে বন্টন করা হয়। তবে ক্ষতিগ্রস্ত প্রতারণার শিকার পরিবারের দাবি প্রতারক চক্রটি ৯ দিনে ৭ লক্ষ টাকা নিয়ে পালিয়েছে।

এ ব্যাপারে ভ্রাম্যমান আদালতের নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট জ্যোতি বিকাশ চন্দ্র বলেন, প্রতারক চক্রটির শাখা ব্যবস্থাপক নুরুল হুদার মাধ্যমে জানা যায় এই প্রতিষ্ঠানটি সারা বাংলাদেশে মোট ২৯ টি শাখা রয়েছে।




সর্বাধিক পঠিত

Comments

এই পেইজের আরও খবর

মোবাইল অ্যাপ ডাউনলোড করুন

nazrul